ফুসকা রেসিপি

ফুসকা রেসিপি দেখে নিন-বাড়িতেই হবে স্বাস্থ্যকর উপায়ে!

ফুসকা রেসিপি খুজছেন? এইতো… এই আর্টিকেলে পাবেন ফুসকা, ফুসকার পানি এবং ফুসকার পুর তৈরীর মোট ৩-তিনটা রেসিপি খুব সংক্ষিপ্ত ভাবে বর্ননা করা হয়েছে আমাদের এই fuchka recipe in bengali রেসিপি ব্লগটাতে। তো চলুন দেখে নেওয়া যাক ফুসকা রেসিপি তৈরির কৌশল !

ফুচকা তৈরীর রেসিপিঃ

ভালো রান্নার জন্য ভালো উপকণের প্রয়োজন। কিন্তু পাবেন কোথায়? যারা বলছে আমাদের পণ্য অর্গানিক, খাঁটি, বিষমুক্ত ও নিরাপদ, তাদের কথা কতটুকু
বিশ্বাস করা যায়? অথচ আপনার-আমার নিরাপদ খাদ্য চাই। দেখুন নিরাপদ খাদ্য তালিকা ও মূল্য

  • ময়দা-২ কাপ
  • সুজি -২ কাপ
  • তালমাখনা – ২ চা চামচ
  • লবন- ১ চা চামচ 
  • পানি- ২ কাপ

উপরে উল্লেখ করা সবকটা উপকরণ ভালো ভাবে মেখে নিতে হবে।এর পর ১০-১৫ মিনিটের জন্য সেগুলোকে রেখে দিতে হবে।
১০-১৫ মিনিট পরে সেগুলোকে আবার ভালোভাবে মেখে নিয়ে আবার কিছু সময়ের জন্য রেখে দিতে হবে।
এর পর রুটির মতো শেপে কিছু রুটি তৈরী করে ফুসকার ব্যাসের সমান ব্যাসের আকৃতি করে কিছু ফুচকা কেটে নিন।
অতপর সেগুলো তেলে ভেজে ফেলুন।

আরো পড়ুনঃ

ফুসকার পানি তৈরী করতে হলে যা যা লাগবেঃ

উপকরণ
  • পানি 
  • তেঁতুলের কাথ
  • পুদিনা পাতা কুচি
  • ধনেপাতা কুচি
  • কাঁচা লঙ্কা কুচি
  • লঙ্কাগুঁড়ো
  • লবণ
  • বিট লবন
  • চাট মশলা

এখানে সবকটি উপাদান পরিমান মতো দিয়ে একটি টক-ঝাল-মিষ্টি স্বাদের ফুচকার পানি তৈরী করে নিতে হবে।
খুবই সিম্পল স্টেপ।কেবল পরিমানটা আপনার উপর নির্ভর করছে।

যেভাবে তৈরী করবেন ফুচকার পুরঃ

পুর

ফুচকার পুর হল সেই জিনিস যা আপনি বলের মত কুর কুর ও মচমচে জিনিসটার ভিতর পেয়ে থাকেন। আর যেটির জন্যই মূলত ফুচকার
স্বাদ ও মজা আলাদা হয়ে থকে। আপনি নিশ্চই চাইবে সবার থেকে বেশি মজাদার হোক আপনার বানানো ফুচকা। তাহলে নিচের
পদ্ধতিটি ভালো ভাবে ফলো করুন।

  • বুট সেদ্ধ
  • সিদ্ধ আলু মাখা– ২ কাপ 
  • মুড়ি মশলা– ৪ চা চামচ
  • লঙ্কাগুঁড়ো– ২ চা চামচ
  • বিট লবণ– ২ চা চামচ
  • লবণ

প্রতিটি উপাদান আলুর সাথে ভালো ভাবে মিশিয়ে তৈরী করে ফেলুন ফুচকার পুর।

আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে ফুচকাকে বলা হয়ে থাকে পানিপুরি। এতে যতোটা না পুরের ব্যবহার করা হয়,তার চেয়ে বেশী মসলাদার পানি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যাই হোক…

পারফেক্ট ফুচকা তৈরীর গোপন রেসিপি জানেন কি?

এক কথায় যদি বলি, প্রথমে আপনাকে ফুসকা তৈরী করার জন্য একটা ফুচকা নিতে নিতে হবে, অর্থাৎ ফুচকার যে “ঠোল” বা বাইরের অংশটা থাকে সেটা হাতে নিতে হবে। অন্য হাতের বুড়ো আঙুল দিয়ে সামান্য চাপ নিয়ে একটা মাঝারী ছিদ্র করতে হবে। এর পর ফুচকার প্রায় অর্ধেক জায়গা পরিমান পুরটা ভরে নিতে হবে।আর বাকি অর্ধেকে মশলা দিয়ে তৈরি পানি  দিয়ে পূর্ণ করতে হবে!

ব্যাস! একটি পারফেক্ট কম্বিনেশনের ফুচকা রেডি! উপরে চাইলে কিছুটা শশা বা ডিম কুচি যোগ করে নিতে পারেন।এতে করে ফুচকার স্বাদ আরো বেড়ে যাবে!

ফুসকা রেসিপি নিয়ে শেষ কথা

তৈরি করা ফুসকা

মূল কথা হল, ফুসকা রেসিপি এর জন্য কোন গোপন বা সিক্রেট বিষয় নেই। যা থাকতে হবে তা হল আগ্রহ, নিয়ম ফলো আর বার বার চেষ্টা করা।
আপনিকি ভেবে দেখেছেন? দোকানদার রা কত বার ফুচকা তৈরি করে? একদিনেই কি তারা সফল হয়েছে? যারা সফল হয়েছে জেনে দেখুন তার পেছনের খবর। এর জন্য তাকে কত কাঠখরি পেরোতে হয়েছে। আপনিও ভালো ফূচকা বানানে পারবেন।
চেষ্টা করতে থাকুন দোকানের চেয়ে ভালো fuchka recipe অবশ্যই তৈরি করতে পারবেন।

আশা করি ফুডলিংক বিডির এই ফুসকা রেসিপি টি ভালো লেগেছে। কোন প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে কমেন্ট বক্সে দয়া করে জানাবেন।
ও হাঁ, আপনিও কিন্তু এরকম সুন্দর সুন্দর ফুড রেসিপি লিখতে বা ইউটিউবে রান্নার ভিডিও বানাতে পারেন! তাহলে এখনি যোগাযোগ করুন।
আরও ভালো জানার জন্য ইউটিউব চ্যানেল থেকে ঘুরে আসতে পারেন। আশা করি ফুসকা তৈরির সহজ রেসিপি ভিডিওটি দেখে আরও সহজে
বাসায় রান্না করতে পারবেন হোটেলের চেয়েও সুন্দর করে। প্রবন্ধটি সংরক্ষণে রাখতে আপনার সোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করে রাখুন।
যাতে প্রয়োজনে খুজে পেতে সহজ হয়। সাথে থাকার জন্য অন্তরের অন্তরস্থল থেকে এক রাশ প্রিতি ও ভালোবাসা রইল।

লেখাটি আবার পড়তে পড়তে চান? আপনার সোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.